নেংটি ইদুর

নেংটি ইদুর

লিডিয়া ডেভিস

আমাদের ঘরের দেয়ালে ক‘টা নেংটি ইদুর গর্ত করে থাকে তবে রান্নাঘরে কোন উৎপাত করে না। এতো বড় খুশীর কথা, তবে কিছুতেই মাথায় ঢোকে না, ওরা রান্নাঘরে আসে না কেন? ওখানেই আমরা ইদুর-মারা-কল পেতে রেখেছি। আমাদের পাড়া-প্রতিবেশীদের রান্নাঘরেতো ইদুর ঢোকে! আমরা ভারী সন্তুষ্ট আবার অসিন্তুষ্টও বটে। কেনোনা নেংটিগুলোর আচরণে মনে হচ্ছে কিনাকি এক ঘাপলা রয়েছে আমাদের রান্নাঘরে। এতে আমরা এক বিভ্রান্তকর মানসিক পরিস্থিতিতে পড়েছি, তাহলে কি আমাদের রান্নাঘর পড়শীদের রান্নাঘরের চাইতে কম অপরিষ্কার! রান্নাঘরের মেঝেতে আরো খাবার দাবার ছড়িয়ে ছিটিয়ে ফেলে রাখা হলো, রআন্নাঘরের কাউন্টারে আরো পাউরুটির ঝুরি ঝুরি গুড়ো-গুড়ি ফেলে রাখা হলো, কাউন্টারের কোনায় কোনায় পেয়াজের খোসা আর টুকটাক কাটা অংশ পা দিয়ে ঠেলে ঠেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হলো। মানে আমার মনে হচ্ছে এখন মোটা মুটি রান্নাঘরটার অবস্থা এমন আস্তাকুড়ের মতো যা দেখে ইদুরেরাও লজ্জা পাচ্ছে। এই নোংরা রান্নাঘরে খুটে বেছে খেয়ে দেয়ে ওরা বহাল তবিয়তে আগামী বসন্ত কাটিয়ে দিতে পারবে। ওরা একেবারে ঘন্টার পর ঘন্টা মনের আনন্দে তেড়ে-মেরে খুট খুট করে খেয়ে দেয়ে বেড়াতে পারব, আমাদের রান্নাঘরে, যাইহোক এখানে এসে তারা এমন যা দেখলো তা আগে কখনো বাপের জন্মেও দেখেনি। ওরা হয়তো ঘরের মধ্যে অতি সাহস দেখিয়ে দু‘চার পা হেঁটেও বেড়িয়েছে, তবে ঐ অভিভূতকারী জিনিষটা দেখা ও শোঁকামাত্র নেজ গুটিয়ে দৌড় যে যার গর্তে, অস্বস্তিকর — বিব্রতকর অবস্থা, সেই বল আর গায়ে ফিরে পাচ্ছে না।

মুল কাহিনি: conjunctions

Image by sipa from Pixabay

Leave a Reply