You are currently viewing ভেসুভিয়াস

ভেসুভিয়াস

নেপলস উপসাগরে ভেসুভিয়াস পর্বতের গোড়ায় সমৃদ্ধশালী প্রাচীন শহর ছিল পম্পেই এবং হারকুলেনিয়াম। প্রথম রোমান সাম্রাজ্যের যুগে, ২০,০০০ মানুষ পম্পেইতে বসবাস করত, এদের মধ্যে কিছুজন বণিক, কিছুজন কারিগর এবং কেউ কেউ কৃষি কাজ করে জীবন নির্বাহ করতো। এই অঞ্চলের সমৃদ্ধ মাটি অসংখ্য দ্রাক্ষাক্ষেত্র এবং বাগান দিয়ে সাজানো। কেউই সন্দেহ পর্যন্ত করতে পারে নি যে কালো উর্বর মাটি — সেই ভেসুভিয়াস পর্বতের আগের অগ্ন্যুৎপাতের উত্তরাধিকার। হারকুলেনিয়ামে বসবাস করতো প্রায় ৫০,০০০ মানুষ; ধনী রোমানদের কাছে এই শহর ছিল প্রিয় গ্রীষ্মর্কালীন ভ্রমনস্থল। পৌরাণিক নায়ক হারকিউলিসের নামানুসারে এর নামকরণ– হারকুলেনিয়াম; সেখানে ছিল ধনীদের সমৃদ্ধিশালী ভিলা এবং গ্র্যান্ড রোমান বাথ। হারকুলেনিয়ামে খুঁজে পাওয়া জুয়ার জিনিসপত্র এবং পম্পেইতে পাওয়া একটি পতিতালয় শহরগুলির ক্ষয়িষ্ণু প্রকৃতির প্রমাণ দেয়। এই অঞ্চলে ছিল ছোট ছোট রিসর্ট কমিউনিটি — যেন শান্ত ছোট শহর স্টাবিয়া।

২৪ আগস্ট, ৭৯ খ্রিস্টাব্দের দুপুরে, এই আনন্দ এবং সমৃদ্ধির অবসান ঘটে — মাউন্ট ভিসুভিয়াস জেগে ওঠে। শুরু হয় শিখর ফেটে অগ্ন্যুৎপাত, ১০ মাইল জুড়ে আকাশের স্টেটসফিয়রি স্তরে ছড়িয়ে পড়ে মাশরুমের মতো ছাই আর ঝামা পাথর। ১২ ঘন্টা ধরে চলে এই ঘটনা, আগ্নেয়গিরির ছাই এবং ৩ ইঞ্চি ব্যাস পর্যন্ত ঝামা পাথরের শিলা বর্ষণ হয় পম্পেইতে, শহরের অধিবাসীরা সেই সন্ত্রাসে শহর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়। অগ্ন্যুৎপাত থামার আশায় প্রায় ২,০০০ মানুষ পম্পেইতেই অপেক্ষায় করেছিল, মাটির নিচের কোঠরে বা পাথরের কাঠামোর মধ্যে লুকিয়ে।

আজ, মাউন্ট ভেসুভিয়াস ইউরোপীয় মূল ভূখণ্ডের একমাত্র সক্রিয় আগ্নেয়গিরি। এর শেষ অগ্ন্যুৎপাত হয়েছিল ১৯৪৪ সালে এবং এর শেষ বড় অগ্ন্যুত্পাত হয়েছিল ১৬৩১ সালে। নিকট ভবিষ্যতে আরেকটি বিস্ফোরণ আশা করা হচ্ছে, তা ভেসুভিয়াসের আশেপাশের “ডেথ জোনে” বসবাসকারী ৭০০,০০০ মানুষের জন্য ধ্বংসাত্মক হতে পারে।

Image by Michael Swanson from Pixabay 

Leave a Reply